বাস ও ট্রেনের সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন নিহত

পাকিস্তানে বাস ট্রেন ভয়াবহ সংঘর্ষ, নিহত ২০  

পাকিস্তানের দক্ষিণ সিন্ধু প্রদেশে শুক্রবার বাস ও ট্রেনের সংঘর্ষে অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছে অনেকে। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দেশটির কর্মকর্তারা এই তথ্য জানিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সুক্কুর জেলায় এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে। পাকিস্তান এক্সপ্রেস নামে যাত্রীবাহী ট্রেন করাচি থেকে লাহোরের দিকে যাচ্ছিলো, পথিমধ্যে সাগোধার দিকে যাওয়া একটি বাসে ধাক্কা মারে।

সুক্কুর জেলার ডেপুটি কমিশনার রানা আদীল এএফপি’কে বলেন, অন্তত ২০ জন নিহত এবং ৫৫ জন আহত হয়েছেন। তিনি আরো জানা, আহতদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

ঘটনাস্থলে থাকা সিনিয়র রেলওয়ে কর্মকর্তা তারিক কলাছি বলেন, উদ্ধার অভিযান চলছে কিন্তু অন্ধকারের জন্য অনেক দুর্বোধ্য হয়ে পড়েছে।

এছাড়া তিনি জানান, হতাহতের সবাই বাসে থাকা যাত্রী। টিআরটি ওয়ার্ল্ড, হিন্দুস্তান টাইমস।

ভারতে করোনাভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা

ভারতে ভয়াবহ রূপ নিতে পারে করোনাভাইরাস : মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা

ভারতে করোনাভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা। তারা বলেছে, উপমহাদেশটিতে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে তা হবে ভয়াবহ। মার্কিন গোয়েন্দা সূত্রের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

চীনের বাইরেও অন্যান্য দেশে করোনাভাইরাসের গতিবিধির ওপর বিশেষ নজর রাখছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা। কোন দেশের সরকার করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কতটা প্রস্তুত, সেদিকেও নজর রাখা হচ্ছে। সেই পর্যবেক্ষণ করতে গিয়ে ভারত প্রসঙ্গে এই মন্তব্য করেছে।

ভারতে এখনও পর্যন্ত হাতে গোনা কয়েকজনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া গেছে। কিন্তু ঘনজনসংখ্যার এই দেশে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করার ক্ষমতা ‌অত্যন্ত সীমিত বলে মনে করছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা। তাই চীনের পরে করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য ক্ষেত্র হিসেবে যে দেশ তাদের সবচেয়ে চিন্তায় রেখেছে তা হলো ভারত। করোনাভাইরাসের হামলা ঠেকাতে যতটা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হয়, তা এই দেশের বেশিরভাগ জায়গাতেই নেই বলে মনে করছে তারা।

করোনাভাইরাসের হামলায় ইরানের পরিস্থিতি নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা। ইরানেও যেভাবে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে তা অত্যন্ত আশঙ্কার বলে মনে করা হচ্ছে।

দেশটিতে করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। হাসপাতাল সূত্রের বরাত দিয়ে শুক্রবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) মধ্যরাতে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে অন্তত ২১০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে ইরানেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইরানের এক সাবেক রাষ্ট্রদূতের মৃত্যু হয়েছে। তিনি ভ্যাটিকান নগরীতে ইরানের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের একটি সূত্র জানিয়েছে, করোনাভাইরাস ঠেকাতে ইরান যে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে তা অকার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। আর এই প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে দেশটির সক্ষমতা যৎসামান্য বললেই চলে।

আরেকটি সূত্র বলেছে, করোনাভাইরাস মোকাবিলায় কিছু উন্নয়নশীল দেশের সরকারের সক্ষমতা নিয়েও উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা।

বৈশ্বিক করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে গোয়েন্দা সংস্থার পাঠানোর একটি খসড়া ইতোমধ্যে হাউস অব রিপ্রেজেন্টিটিভের গোয়েন্দা কমিটির হাতে পৌঁছেছে। হাউস অব রিপ্রেজেন্টিটিভের গোয়েন্দা কমিটির এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ‘কমিটি আইসি (ইন্টেলিজেন্স কমিউনিটি) থেকে করোনার বিষয়ে একটি ব্রিফিং পেয়েছে। এবং এই প্রাদুর্ভাবের বিষয়ে প্রতিদিনই আপডেট আসছে।’

শুধু তথ্য সংগ্রহই নয়, ইউএস সেন্টার ফর ডিজিসেস কন্ট্রোলের মতো স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা।

বিশ্বব্যাপী ৫৪টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ৮৫৮ জনের। আক্রান্ত হয়েছে ৮৩ হাজার ৩৭৯ জন। অপরদিকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৬ হাজার ৪৩৬ জন।

করোনাভাইরাসে শুধুমাত্র চীনের মূল ভূখণ্ডেই আক্রান্ত হয়েছে ৭৮ হাজার ৮২৪ জন, মারা গেছে ২ হাজার ৭৮৮ জন। অপরদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ২২ এবং মৃত্যু হয়েছে ১৩ জনের।

সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, নাইজেরিয়া, বেলারুশ ও লিথুয়ানিয়াও নিজেদের দেশে প্রথম করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী পাওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে। এশিয়া, ইউরোপ, আমেরিকা, আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া-কোনো মহাদেশ বাদ যায়নি এই ভাইরাসের আক্রমণ থেকে।

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকে ‘সর্বোচ্চ ঝুঁকি’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সংস্থাটির ঝুঁকি নির্ণয়ে এটি সর্বোচ্চ ধাপ। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান ড. টেড্রস অ্যাডহানম গেব্রেইয়েসুস এই ঘোষণা দেন বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে ড. টেড্রস অ্যাডহানম বলেন , ‘এই জিনিসটি (করোনাভাইরাস) এখন যেকোনো দিকে মোড় নিতে পারে। এর যে ঝুঁকি সেটাকে আমরা দুর্বল করে দিতে পারছি না। এজন্য আজ আমরা বলছি, করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক ঝুঁকি এখন সর্বোচ্চ পর্যায়ে। আগে আমরা বলেছি, উচ্চ ঝুঁকি। এখন বলছি সর্বোচ্চ ঝুঁকি।’

সূত্র : জাগো নিউজ

মুসলিমদের পাশে থাকার অঙ্গীকারে শপথ নিলেন মমতা-সোনিয়া

এবার মুসলিমদের অধিকার আদায়ে সব সময় পাশে থাকার অঙ্গীকার নিয়ে হাতে হাত রাখলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধী । তাদের মতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং জাতীয় নাগরিকপঞ্জির (এনআরসি) নামে বিভাজনের কৌশল নিয়েছে মোদি সরকার। তাই সব বিরোধী দল তাদের সাধ্যমতো আন্দোলন চালিয়ে যাবে, এই অঙ্গীকারই উঠে এল ঝাড়খণ্ডের নতুন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সরেনের শপথ অনুষ্ঠানের অবসরে। রাঁচীতে ওই শপথ-মঞ্চে রাহুল গান্ধীদের পাশাপাশি অন্যতম মুখ্য চরিত্র ছিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা (জেএমএম) এবং কংগ্রেসের জোট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে হেমন্তের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে এ দিন হাজির ছিলেন দেশের প্রায় সব অ-বিজেপি দলের প্রতিনিধিরা। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতার পাশেই ছিলেন ছত্তীশগঢ়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেন্দ্র বঘেল, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌত, তামিলনাড়ুর ডিএমকে-র সভাপতি এম কে স্ট্যালিন ও তাঁর সাংসদ-বোন কানিমোঝি।

নরেন্দ্র মোদী সরকারের সাম্প্রতিক পদক্ষেপের বিরুদ্ধে সব বিরোধী দলকে এক সুরে প্রতিবাদ করার আহ্বান জানিয়ে সম্প্রতি চিঠি দিয়েছিলেন মমতা, তার জবাব দিয়ে তৃণমূল নেত্রীর সঙ্গেই একমত হয়েছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধী।

জ্যামাইকায় বসবাসকারী সিপিএ মোহাম্মদ হায়দার আলম (৫৪) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজেউন)

নিউইয়র্কের জ্যামাইকায় বসবাসকারী সিপিএ মোহাম্মদ হায়দার আলম (৫৪) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজেউন)। বৃহস্পতিবার (২৭ ফেব্রুয়ারী) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তার এক মাত্র কন্যা তাসফিয়া আলম-কে স্কুলে পৌছে দেয়ার পর বাসায় ফেরার পথে তিনি স্ট্রোকের শিকার হন এবং জ্যামাইকার ১৬৯ স্ট্রীট ও হাইল্যান্ড এভিনিউ এলাকায় রাস্তায় পড়ে যান। ফলে তার মাথা ফেটে যায় এবং শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ আঘাতপ্রাপ্ত হয়। পরে তাকে দূত কুইন্স জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। তিনি ২০/২২ আগে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হন। খবর ইউএনএ’র।

রাজশাহী জেলা সমিতি ইউএসএ’র সভাপতি মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ আকন্দ জানান, সিপিএ হায়দার আলম স্ত্রী তালিয়া শামসী আরা ও কন্যা তাসফিয়া আলম (১২)-কে নিয়ে কুইন্সের জ্যামাইকা এলাকায় বসবাস করতেন। তার দেশের বাড়ী রাজশাহী জেলার গুদাবাড়ী উপজেলায়। তিনি দীর্ঘদিন ধরে শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন।

এদিকে সিপিএ হায়দার আলীর মৃত্যুর খবর পাওয়ার পর রাজশাহী জেলা সমিতির নেতৃবৃন্দ সহ কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জ্যামাইকার ঘরোয়ার রেষ্টুরেন্টে জরুরী সভায় মিলিত হন। সভায় তার মরদেহ দাফন সহ আনুসাঙ্গীক কর্ম সম্পাদন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। মরহুম হায়দার আলমের দাফন প্রক্রিয়া সহ তার পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন। সভায় তার অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করা হয়।

সভায় রাজশাহী জেলা সমিতি ইউএসএ’র সভাপতি মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক এম এ মজিদ আকন্দ সহ মরহুমের শশুর প্রিন্সপ্যাল মোজাম্মেল হক, ডা. আব্দুল লতিফ, মোহাতার হোসেন, মুজিব উদ্দিন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার মরদেহ হাসপাতাল মর্গেই ছিলো। এম এ মজিদ আকন্দ ইউএনএ প্রতিনিধিকে জানান, হাসপাল কর্তৃপক্ষ মরহুম হায়দার আলমের মরদেহ শুক্রবার (২৮ ফেব্রুয়ারী) সকালে ফিউনেরার হোমে হস্তান্তর করার কথা। পরবর্তীতে তার নামাজে নানাজা শেষে নিউইয়র্কের লং আইল্যান্ডস্থ ওয়াশিংটন মেমোরিয়াল মুসলিম কবর স্থানে তার মরদেহ দাফন করা হবে।

৬ মুসলিমের জীবন বাঁচিয়ে মৃত্যুমুখে প্রেমকান্ত

দিল্লির অধিবাসীরা গত কয়েক দশকের মধ্যে শহরটির সবথেকে ভয়াবহ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা দেখলেন। দাঙ্গায় নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ৩৪ জন। আহত হয়েছেন আরো দুই শতাধিক। ফলে রাজধানীর একাংশে হিন্দু ও মুসলমানের মধ্যে একে অপরের প্রতি বিরাজ করছে ঘোর অবিশ্বাস। একইসঙ্গে সৃষ্টি হয়েছে এমন কিছু গল্পের যা প্রমাণ করে মানবতা এখনো টিকে আছে পৃথিবীতে। এমনই এক গল্পের স্রষ্টা প্রেমকান্ত বাঘেল।

ইন্ডিয়া টাইমসসহ ভারতীয় গণমাধ্যমগুলিতে উঠে এসেছে, কীভাবে নিজের জীবন বাজি রেখে ৬জন মুসলিম প্রতিবেশির জীবন বাঁচিয়েছেন প্রেমকান্ত। ঘটনার দিন দাঙ্গা চলাকালীন প্রেমকান্তের বাড়ির পাশে থাকা মুসলিম বাড়িগুলোতে আগুন লাগিয়ে দেয় হিন্দুত্ববাদীরা।প্রেমকান্ত যখন দেখলেন তার মুসলিম প্রতিবেশিদের বাড়িতে আগুন জ্বলছে তিনি এক মুহুর্ত দেরি না করে তাদেরকে সাহায্য করতে চলে যান। জীবন বাজি রেখে প্রতিবেশিদের উদ্ধার করতে থাকেন। আগুন জ্বলতে থাকা ঘরগুলো থেকে বের করে আনেন আটকে পড়া মানুষদের।

তবে মুসলিম বন্ধুর বয়স্ক মাকে উদ্ধার করতে গিয়ে গুরুতর দগ্ধ হয়েছেন প্রেমকান্ত। দগ্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত প্রাণ বাঁচিয়েছেন অন্তত ৬ জন মুসলিমের। তবে দগ্ধ হওয়ার পরেও তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়নি কেউ। সারারাত একইস্থানে থাকার পর পরদিন তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার অবস্থা গুরুতর। শরীরের ৭০ শতাংশেরও বেশি পুড়ে গেছে। তাকে বাঁচানোর চেষ্টা চলছে। তবে তার অবস্থা এখনো সঙ্কটাপন্ন। প্রেমকান্ত সর্বশেষ জানিয়েছেন, তিনি তার বন্ধু ও তার প্রতিবেশিদের রক্ষা করতে পেরেছেন ভেবে তৃপ্তি অনুভব করছেন।

প্রেমকান্তের মত এমন অনেকেই এগিয়ে এসেছেন দিল্লির দাঙ্গায় ক্ষতিগ্রস্থদের বাঁচাতে। মুসলিমদের পাশে দাঁড়িয়েছে দিল্লির শিখ সম্প্রদায়ও। হামলা থেকে নিরাপদ থাকতে যেসব মুসলিম ঘর ছেড়েছিলেন তাদের জন্য নিজেদের একটি প্রার্থনাস্থল গুরদোয়ারার দরজা খুলে দিয়েছেন দিল্লির শিখরা। মুসলিমদের পাশে দাড়িয়েছেন ভারতের রাজধানীর অশোকনগরের হিন্দুরাও। তারা ক্ষতিগ্রস্ত অনেক মুসলিম পরিবারকে নিজেদের বাড়িতে সুরক্ষা দিয়ে রেখেছেন। দাঙ্গাকারীদের থামাতে নিজেরা প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলেন। ভ্রাতৃত্বের নজির রেখেছেন মুসলিমরাও। বুধবার হিন্দুদের মন্দিরে হামলা হলে স্থানীয় অন্য মুসলিমরা হাতে হাত রেখে মানবশৃঙ্খল গড়ে তোলে। দাঙ্গাকারীদের হাত থেকে রক্ষা করে চাঁদবাগের একটি মন্দিরকে।

উল্লেখ্য, গত রোববার থেকে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। দ্রুতই এটি সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় পরিণত হয়। এখন পর্যন্ত মোট ৩৪ জন নিহত হয়েছেন দাঙ্গায়। এরমধ্যে শুধু বৃহস্পতিবার নিহত হয়েছেন ৭ জন।

মশা যেন ভোট খেয়ে না ফেলে: ঢাকার মেয়রদের প্রধানমন্ত্রী

ঢাকার দুই সিটির নব-নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের মশা, বিশেষ করে এডিস মশার ব্যাপারে দৃষ্টি দিতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘এখানে ডেঙ্গু নিয়ে সমস্যা রয়েছে। আপনাদের এখন মশা নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা নিতে হবে। তা নাহলে মশা আপনাদের ভোট খেয়ে ফেলবে। আপনারা অবশ্যই এটি দেখতে পাবেন। আপনাদের মনে রাখতে হবে যে, মশা ছোট (পোকামাকড়) হলেও খুব শক্তিশালী।’

বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

এসময় ঢাকা মহানগরীতে চলমান মেগা প্রকল্প ও উন্নয়ন প্রকল্প যথাসময়ে বাস্তবায়নে নব-নির্বাচিত প্রতিনিধিদের সহযোগিতাও কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী। খবর ইউএনবির

সরকার ঢাকাসহ সারাদেশে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কার্যক্রম নিয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তিনি চান এসব উন্নয়নমূলক কাজে যেন কোনো ধরনের দুর্নীতি ও অনিয়ম না হয়। যদি এ জাতীয় ঘটনা ঘটে, তবে আমি কাউকেই ছাড়ব না, সে যেই হোক না কেন। কারও সঙ্গে কোনো ধরনের আপস করা হবে না।

এর আগে স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলাল উদ্দিন আহমেদের সঞ্চালনায় প্রথমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে শপথ নেন ঢাকা উত্তরের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম ও ঢাকা দক্ষিণের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। পরে দুই সিটি করপোরেশনের নব-নির্বাচিত কাউন্সিলররা স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন এবং সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলামের কাছে শপথ নেন।

তবে শপথ নিলেও এখনই দায়িত্ব বুঝে পাচ্ছেন না নবনির্বাচিত মেয়ররা। কারণ দুই সিটির মধ্যে বর্তমান মেয়রদের পাঁচ বছরের মেয়াদ এখনও শেষ হয়নি। ডিএনসিসি বর্তমান মেয়রের মেয়াদ শেষ হবে ১৩ মে এবং ডিএসসিসি মেয়রের মেয়াদ শেষ হবে ১৭ মে।

প্রসঙ্গত, গত ১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ও ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস জয়ী হন।

মেয়র পদ ছাড়াও ডিএসসিসি-তে ১০০টি কাউন্সিলর পদের মধ্যে ৭৫টি ওয়ার্ড থেকে ৭৫ জন সাধারণ কাউন্সিল এবং ২৫ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর রয়েছেন। আবার ডিএনসিসির ৭২টি কাউন্সিলর পদের মধ্যে ৫৪টি ওয়ার্ড থেকে ৫৪ জন সাধারণ কাউন্সিলর এবং ১৮ জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর রয়েছেন।

উন্নত চিকিৎসার 'সম্মতি দেননি' খালেদা জিয়া

উন্নত চিকিৎসা (অ্যাডভান্সড ট্রিটমেন্ট) নিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সম্মতি দেননি বলে আদালতকে জানিয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) কর্তৃপক্ষ।

বিএসএমএমইউর পাঠানো প্রতিবেদন বৃহস্পতিবার বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে উপস্থাপন করেন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল। পরে আদালত তা পড়ে শোনান।

আদালতে দেওয়া প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের পরামর্শ অনুযায়ী তিনি চিকিৎসা নিতে সম্মত হননি। পরে আদালত আদেশের জন্য বেলা ২টায় সময় নির্ধারণ করেন ।

আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জ্যেষ্ঠ আইনজী ব্যারিস্টার মওদুদ, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদীন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আর দুদকের পক্ষে ছিলেন খুরশীদ আলম খান।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদার জামিন আবেদনের ওপর আদেশকে কেন্দ্র করে সকাল থেকেই সবার চোখ উচ্চ আদালতের দিকে। খালেদা জিয়া কি জামিন পাবেন? নাকি আবেদন খারিজ হয়ে যাবে? এ নিয়ে জনমনে রয়েছে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা।

২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাবন্দি আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর ভাষণটিও বাজাতে হবে: হাইকোর্ট

দুর্নীতি ও ঘুষ বন্ধের বিষয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণটিও দেশের সব স্থানে বাজানোর পরামর্শ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, ব্যাংক খালি হয়ে গেছে, হাজার হাজার কোটি টাকা দেশের বাইরে চলে গেছে। এখন যদি বেসরকারি ব্যাংকের মতো সরকারি ব্যাংক থেকেও টাকা চলে যায়, তাহলে এ খাতে ধস নামবে।

বুধবার ‘জয় বাংলা’কে জাতীয় স্লোগান ঘোষণা নিয়ে করা রিটের শুনানিতে এ মন্তব্য করেন বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কেএম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

১৯৭২ সালের ৫ এপ্রিল ময়মনসিংহ সার্কিট হাউসের জনসভায় বঙ্গবন্ধুর দেওয়া ভাষণের অংশ বিশেষ আদালতে তুলে ধরেন অ্যাটর্নি জেনারেল। ওই ভাষণে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘ইনশাল্লাহ সোনার বাংলা আবার জাগবে। যদি শোষণহীন সমাজ গড়তে পারি, তবে আপনাদের সাহায্য-সহযোগিতা প্রয়োজন। আপনাদের কাছে আমার আরেকটা অনুরোধ হলো, দুর্নীতি ও ঘুষের বিরুদ্ধে আপনারা আন্দোলন করতে রাজি আছেন কিনা? দুর্নীতি আর ঘুষ, রাজি আছেন? হ্যাঁ, খোদা হাফেজ-জয় বাংলা।’

এ পর্যায়ে অ্যাটর্নি জেনারেলের উদ্দেশে হাইকোর্ট বলেন, বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণ এখন বেশি করে জনগণকে জানানো দরকার। সেজন্য ভাষণটি সব স্থানে বেশি বেশি বাজানো দরকার। আদালত বলেন, আমানত সুরক্ষা আইন করা হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গেলে আমানতকারী ১০ কোটি টাকা রাখলে পাবেন মাত্র এক লাখ টাকা। এটা কি দুর্নীতিবাজদের উৎসাহিত করতে করা হয়েছে? আদালত বলেন, ২০-২২ জন ব্যক্তি, যাদের কাছে সম্পদ রয়েছে, তারা যদি দেউলিয়া হয়ে যায়, তাহলে আর্থিক খাতে বড় ধরনের প্রভাব পড়বে। এরপর শুনানি মুলতবির আদেশ দেন হাইকোর্ট।

আজ খালেদা জিয়া জামিন পাবেন !

বহুল আলোচিত জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জামিন পাবেন কি-না তা জানা যাবে দুপুরে।

বৃহস্পতিবার বেলা ২টায় বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ বিষয়ে আদেশ দেবেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের স্বাস্থ্য প্রতিবেদন জমা নেওয়ার পর জামিন আবেদনের শুনানি শেষে বেলা সোয়া ১১টার দিকে আদেশের সময় নির্ধারণ করেন হাইকোর্ট বেঞ্চ।

আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জ্যেষ্ঠ আইনজী ব্যারিস্টার মওদুদ, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদীন। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

সাবেক প্রধানমন্ত্রীর জামিন আবেদনের ওপর আদেশকে কেন্দ্র করে সবার চোখ আজ উচ্চ আদালতের দিকে। খালেদা জিয়া কি জামিন পাবেন? নাকি আবেদন খারিজ হয়ে যাবে? এ নিয়ে জনমনে রয়েছে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা।

বিএনপি নেতা ও আইনজীবীরা বলছেন, ন্যায়বিচার পেলে খালেদা জিয়া জামিন পাবেন বলে আশাবাদী। তবে দুদকের আইনজীবী বলছেন, তার জামিন পাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

রাজনৈতিক বিশ্নেষকদের কেউ কেউ বলছেন, ‘রাজনৈতিক সমঝোতা’ হলেই কেবল খালেদা জিয়া জামিন পেতে পারেন। কেউ-বা বলছেন, স্বাস্থ্যগত প্রতিবেদনের ওপরই নির্ভর করছে আদালতের আদেশ। এর মধ্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে টেলিফোন করায় সমঝোতার বিষয়কেও গুরুত্ব দিচ্ছেন অনেকে।

নিউইয়র্ক গোলাপগঞ্জ সোসাইটির নবনির্বাচিত কমিটির অভিষেক সম্পন্ন।

জাহেদ জারিফ
নতুন নেতৃত্বকে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরণ করে নেয়ার প্রস্তুতি চলছিল পুরো মাসজোড়ে।অভিষেক অনুষ্ঠানকে চমকপ্রদ ও আকর্ষণীয় করে সাজাতে একের পর এক আলোচনা-পর্যালোচনা লেগেই ছিলো।সোসাইটির সবার সহযোগীতায় ও অক্লান্ত পরিশ্রমে ফলে আগত অতিথি সহ প্রবাসী গোলাপগঞ্জবাসী একটি ব্যতিক্রম,দৃষ্টিনন্দন অভিষেক অনুষ্টান উপভোগ করলেন।নেতৃত্বের পালাবদলে সোসাইটির নতুন নেতৃত্বকে বরণ ও সদ্য সাবেক নেতৃবৃন্দকে শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত করা হয় গত ২৩ ফেব্রুয়ারি উডসাইডস্থ কুইন্স প্যালেস মিলনায়তনে।অভিষেক অনুষ্ঠানকে ঘিরে পুরো কমিউনিটির মধ্য উৎসাহ উদ্দীপনা আর প্রাণ চাঞ্চল্য দেখা দেয়।নির্ধারিত সময়ের আগে থেকে দূরের পথ পাড়ি দিয়ে সবাই অনুষ্ঠানস্থলে আসতে শুরু করলে অনুষ্ঠান শুরুর পূর্বেই হল রুম কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে।স্কুল বন্ধ থাকায় স্কুলগামী ছাত্রছাত্রী ও মায়েদের উপস্থিতি ছিলো চোখে পড়ার মতো। অভিষেক অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন মুহিবুর রহমান।পরে সমবেত কন্ঠে পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত গাওয়া হয়।এবাদ চৌধুরী ও ওয়াহিদ পারভেজের যৌথ পরিচালনায় অতিথিবৃন্দ আসন গ্রহণ শেষে শুরু হয় নবনির্বাচিত কমিটির শপথ গ্রহণপর্ব।প্রধান নির্বাচন কমিশনার বীরমুক্তিযোদ্ধা ওহিদুর রহমান মুক্তা শপথপর্ব পরিচালনা করেন।শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন নবনির্বাচত সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোমিত চৌধুরী ওমেল,সদ্য সাবেক কমিটির পক্ষ থেকে বক্তব্য প্রদান করেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শেখ আতিকুল ইসলাম।অভিষিক্ত কমিটির পক্ষ থেকে উপস্থিত অতিথি সহ সবাইকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়েজ আহমদ চৌধুরী,সদস্য তুহিন আহমদ চৌধুরী।প্রধান অতিথির বক্তব্যে আজমল হোসেন কুনু গোলাপগঞ্জের সমৃদ্ধ ইতিহাস ও ঐতিহ্যের প্রতি আলোকপাত করে সোসাইটির উত্তোরত্তর সাফল্য কামনা করেন।বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ কনস্যুলেটে নিযুক্ত সচিব সামীম আহমদ অনুষ্ঠানকে ঘিরে তাঁর মুগ্ধতার কথা বলেন এবং নতুন নেতৃত্বের সফলতা কামনা করেন,খ্যাতিমান সাংবাদিক ও রাজনীতিবিদ ইব্রাহীম চৌধুরী খোকন বলেন আমার পরিচয়ের প্রশ্নে আমি সবসময়ই গোলাপগঞ্জ বলতে কোনো হীনমন্ম্যতায় ভোগিনা,গোলাপগঞ্জ পরিচয় দিতে পারা আমার জন্য গর্বের।সোসাইটির যেকোন প্রয়োজনে নেতৃবৃন্দকে সাহায্য সহযোগীতা আপসহীনভাবে করে যাবেন বলে উল্লেখ করেন।আরোও বক্তব্য প্রদান করেন কমিউনিটির পরিচিত মুখ কামাল আহমদ,এমাদ আহমদ চৌধুরী,আব্দুল হাসিব মামুন,ওহিদুর রহমান মুক্তা,আব্দুর রহিম বাদশা,ময়নুল হক চৌধুরী,তাজুল ইসলাম চৌ.,সুলেমান আহমদ চৌধুরী,আজিজুর রহমান বুরহান,ফয়জুর রহমান ফটিক,মহি উদ্দীন দেওয়ান,মুহিবুর রহমান চৌধুরী ।অভিষিক্ত কমিটির সভাপতি বিশিষ্ট সাংগঠনিক ও ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক হেলিম আহমদ অতিথিবৃন্দ সহ উপস্থিত সবাইকে সোসাইটির পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানান,বিশেষ করে স্কুলগামী ছাত্রছাত্রী ও তাদের মায়েদের অংশগ্রহণ কে তিনি সাধুবাদ জানান।তাদের স্বতস্ফূর্ত সমর্থন সোসাইটিকে আগামীতে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে নিয়ামক শক্তি হিসেবে কাজ করবে বলে উল্লেখ করেন ।নৈশভোজ শেষে শুরু হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে দর্শক-শ্রোতাকে মাতিয়ে রাখেন নিউইয়র্কের জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী।অনুষ্ঠানে বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে ছিলো কমিউনিটি হেল্পডেস্ক;যেখানে নবাগত প্রবাসীদের সুবিধার্থে তাদের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্যসম্বলিত লিফলেট বিতরণ করা হয়।লিফলেটে আমেরিকায় সরকারী বেসরকারী চাকরী,ব্যবসা সহ আবাসন সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় তথ্য ছিলো।অভিষিক্ত কমিটির সভাপতি হেলিম আহমদের সাথে একান্ত আলোচনায় প্রতিবেদকের সাথে তিনি তাঁর অনুভুতি ও কর্ম পরিকল্পনার কথা বলতে গিয়ে উল্লেখ করেন বহিঃবিশ্বে সিলেটের সর্ববৃহৎ সংগঠন জালালাবাদ এসোসিয়েশন সহ প্রবাসে অসংখ্য সংগঠনে কাজ করার অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে নিউইয়র্ক গোলাপগঞ্জ সোসাইটিকে প্রবাসী গোলাপগঞ্জবাসীর আস্থা ও ভরসাস্থল হিসেবে গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।সোসাইটির সাবেক ও বর্তমান সদস্যবৃন্দ সহ সকল গোলাপগন্জবাসীকে সাথে নিয়ে কমিউনিটির জন্য সেবামূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে সোসাইটির ভিত আরো মজবুত করবো।তিনি সোসাইটির সাথে সম্পৃক্ত প্রয়াত সকল নেতৃবৃন্দের মাগফেরাত কামনা করেন।

দিল্লি সংঘর্ষে 'মোদির গুজরাট মডেল'

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে টানা চার দিন ধরে চলছে সংঘর্ষ। একের পর এক চলছে অগ্নিসংযোগ, গুলি, বাড়িতে ঢুকে হামলা মতো হিংসাত্মক ঘটনা। অথচ পুলিশ তা নিয়ন্ত্রণে কার্যত ব্যর্থ। এ কারণে বিরোধী দলগুলোসহ অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন, তবে কি পুলিশের এই ‘ব্যর্থতা’ পরিকল্পিত? ২০০২ সালে গুজরাট দাঙ্গার সময়ও একই অভিযোগ উঠেছিল পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে। 

জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টির (এনসিপি) নেতা নবাব মালিক গুজরাট দাঙ্গার প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘কয়েক দিন ধরে দিল্লিতে চলা সংঘর্ষে পুলিশ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। রাজধানীতে কেন এটা হবে? ২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গার মডেল চলছে দিল্লিতেও।’ 

দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘প্রশ্ন উঠছে, অমিত শাহ এমন নির্দেশ দেননি তো যে, কোনো ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যদি ব্যবস্থা না নেন ও পুলিশ বিক্ষুব্ধদের নিয়ন্ত্রণ না করতে পারে, তা হলে নিশ্চয়ই কিছু গণ্ডগোল আছে। খবর আনন্দবাজারের।

এদিকে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীও দিল্লি সংঘর্ষের পিছনে ষড়যন্ত্র দেখছেন। স্পষ্ট না করে কিছু না বললেও সংঘর্ষ এত বড় আকার নেওয়ার জন্য তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং সরকারি দল বিজেপিকে দুষছেন। তার প্রশ্ন, পুলিশ-প্রশাসন কেন আগে থেকে সক্রিয় হয়নি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ কী করছিলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাচ্ছে দেখেও কেন আগে থেকে আধা সামরিক বাহিনীকে ডাকা হলো না?

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরোধিতায় বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে তিন দিনের সংঘর্ষে দিল্লিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৭ জনে দাঁড়িয়েছে। রোববার থেকে চলা এই বিক্ষোভে অন্তত দুইশ’ মানুষ আহত হয়েছেন।

বুধবার সকালে গুরু তেগ বাহাদুর (জিটিবি) হাসপাতালে চারটি মরদেহ আনা হয় বলে দ্য হিন্দুর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এছাড়া নতুন করে আরও ১০ জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার  উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে সহিংসতায় ১৩ জনের মৃত্যু হয়।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকের কেউ কেউ বলছেন, পুলিশ আগে থেকে আরো সক্রিয় হলে দিল্লির সংঘর্ষের পরিস্থিতি এতটা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেত না। তারাও গুজরাট দাঙ্গায় মতো দিল্লির পুলিশ-প্রশাসনের দিকে সন্দেহের তীর ছুড়েছেন। কেন সেনাবাহিনী নামানো হলো না- সেটা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

দিল্লি পুলিশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন। ওই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী অমিত শাহ। ২০০২ সালে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই সময় গুজরাটে মোদির মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ছিলেন অমিত শাহ। বিষয়টা কাকতালীয় হতে পারে। তবে এ কারণে অনেকের মনে ২০০২ সালের গুজরাটের সেই প্রেক্ষাপট ভেসে উঠছে।

২০০২ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি গুজরাটের গোধরায় সবরমতি এক্সপ্রেসে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। ওই ট্রেনে অযোধ্যা থেকে ফিরছিলেন কর-সেবকরা। এ ঘটনায় জ্বলন্ত দগ্ধ হয়ে মারা যান ৫৮ জন কর-সেবক। এরপর গোটা গুজরাত জুড়ে শুরু হয় হিন্দু-মুসলিম সংঘর্ষ। প্রায় তিন মাস ধরে চলে হামলা, অগ্নিসংযোগ, হত্যা। 

ওই সরকারি হিসাবেই মৃত্যু হয়েছিল ১ হাজার ৪৪ জনের। নিখোঁজ ছিল ২২৩ জন। আহত প্রায় আড়াই হাজার। নিহতদের মধ্যে ৭৯০ জন মুসলিম ও ২৫৪ জন ছিল হিন্দু সম্প্রদায়ের।

পরবর্তীতে অভিযোগ উঠেছিল, সেই সময় গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দাঙ্গা নিয়ন্ত্রণে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেননি, উল্টো প্রচ্ছন্ন মদদ দিয়েছিলেন দাঙ্গায়। পুলিশ-প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দাঙ্গা থামাতে প্রয়োজনীয় নির্দেশও দেননি। এমন অভিযোগও ওঠে, সরকারি কর্মকর্তারাই মুসলিমদের বাড়িঘর, সম্পত্তির তালিকা তুলে দিয়েছিল হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের হাতে। 

ওই অভিযোগের তদন্তে স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম (সিট) গঠন করে দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। ২০১২ সালে সিটের রিপোর্টে ক্লিনচিট দেওয়া হয় মোদীকে। পুলিশ-প্রশাসনের নিষ্ক্রিয় থাকার অভিযোগও খারিজ করে দেয় সিট। 

কয়েক দিন ধরে চলা দিল্লির সংঘর্ষে ফের ফিরে এসেছে সেই প্রশ্ন। এনসিপির নবাব মালিক যেটাকে সরাসরি ‘গুজরাত দাঙ্গা’র উল্লেখ করে বলেছেন, রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের অনেকেই সেই প্রশ্ন তুলছেন আকারে ইঙ্গিতে। 

গুজরাত দাঙ্গার সময়কার সেই প্রশাসনকে নিষ্ক্রিয় করে রাখার অভিযোগ মানেন না অভিযুক্তরা। দিল্লির ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম হয়নি। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর সোনিয়া গান্ধীর অভিযোগের জবাবে বলেন, ‘এই সময় শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য সব রাজনৈতিক দলের এক সঙ্গে কাজ করা উচিত। রাজনীতি করা উচিত নয়। 

অমিত শাহ দিল্লির সংঘর্ষ ঠেকাতে ‘সক্রিয়’ ভূমিকা পালন করছেন মন্তব্য করে তিনি বলেন, মঙ্গলবারও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সর্বদল বৈঠক করেছেন। পুলিশ প্রশাসনের মনোবল বাড়াতে ‘ভোকাল টনিক’ দিয়েছেন।

এদিকে ১৯৮৪ সালের শিখ দাঙ্গার প্রসঙ্গ টেনে দিল্লি হাইকোর্ট বুধবার বলেছেন, ‘আর একটা ১৯৮৪-র দাঙ্গা হতে দিতে পারি না আমরা।’

চীনের বাইরেও খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ।

ইউরোপের দেশ ইতালিতে এই ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা চার শতাধিক ছাড়িয়েছে; মাত্র ২৪ ঘণ্টায় দ্রুত বেড়ে হওয়া এই সংখ্যা ভাবাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকেও (ডব্লিউএইচও)।

বিবিসি বলছে, ইউরোপে করোনার সংক্রমণের ২৫ শতাংশই ইতালিতে। এশিয়ার দেশ চীনের বাইরে এই মহাদেশের আরও কয়েকটি দেশেও ছড়িয়েছে করোনা; যা বাড়ছে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাত থেকে বুধবার রাত পর্যন্ত করোনার সংক্রমিত হয়েছেন ৮০ জন। এই ভাইরাসে দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সিনেমাহল, শপিংমল ও বিভিন্ন জনসমাগমের স্থানগুলো বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

গত ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে করোনাভাইরারেস প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর তা ছড়িয়ে পড়েছে প্রায় ৪০টি দেশে। বিশ্বে করোনায় আক্রন্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ছাড়িয়েছে; মৃত্যু হয়েছে ২৭শ’র বেশি মানুষের।