Advertisements
Skip to content

বাংলাদেশে স্বাভাবিক মৃত্যুও করোনা বলে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে!

91378882_3129825003703641_2569568041436184576_n

দেশে পর্যাপ্ত  করোনা ভাইরাস পরীক্ষা  করার সুযোগ সুবিধা না থাকায় মানুষের  নানান রকম ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে । মানুষ মারা যাবার পর করোনায় মারা গেল কিনা তা পরীক্ষা করা হচ্ছে কিন্তু করোনায় আক্রান্ত রোগীর প্রাথমিক   উপসর্গ     পরীক্ষা করার কোন ব্যাবস্থা  নেই ।দেশের জেলা উপজেলা হসপিটাল গুলো করোনা ভাইরাস এ আক্রান্তদের নিবিড় পরিচর্যার কোন        ব্যাবস্থা নেই !

 

ঢাকাসহ দেশের ১৪ জেলায় মঙ্গলবার বিকাল থেকে বুধবার রাত ১২টা পর্যন্ত জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্টসহ নানা রোগে ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাসে তাদের মৃত্যু হয়েছে কি না, তা নিশ্চিত হতে তাদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউটে (আইইডিসিআর) পাঠানো হয়েছে। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের বাড়ি লকডাউন করে পরিবারের সদস্য ও স্বজনদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে জ্বর, সর্দি, কাশি নিয়ে ভর্তি দুই রোগী মারা গেছেন। তাদের মধ্যে একজনের বয়স ৬৫ এবং অপরজনের ৩২ বছর। বুধবার সন্ধ্যায় ঢামেকের সহকারী পরিচালক (অর্থ) ডা. আলাউদ্দিন আল আজাদ যুগান্তরকে জানান, মঙ্গলবার হাসপাতালের আইশোলেশন ওয়ার্ডে সর্দি-কাশি উপসর্গ নিয়ে ওই দু’জন ভর্তি হন।

তাদের মধ্যে একজন মঙ্গলবার রাত ১০টায় এবং অপরজন বুধবার ভোর ৫টায় মারা যান। লাশগুলো ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে। তিনি আরও জানান, দু’জনের নমুনা আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে।

রিপোর্ট পেলে জানা যাবে তারা করোনায় মারা গেছে, নাকি অন্য কোনো সমস্যায় মারা গেছে। তবে রিপোর্টে পজিটিভ এলে যথাযথ পদ্ধতিতে লাশ দাফন করা হবে। আর নেগেটিভ এলে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে!

 

 

 

Advertisements
%d bloggers like this: