Advertisements
Skip to content

এখনই লকডাউন তুলে নিলে: দিনে গড়ে তিন হাজার করে মানুষ মারা যাবে যুক্তরাষ্ট্রে

96020536_10157710267319965_121247064205033472_n

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর রাষ্ট্র আমেরিকা। এই ভাইরাসের প্রকোপে ইতোমধ্যে দেশটি মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে। দেশটি যেন অসহায় হয়ে পড়েছে এই ভাইরাসের কাছে।

অদৃশ্য এই শক্তির কবল থেকে বাঁচতে আমেরিকাজুড়ে চলছে লকডাউন। তবে লকডাউন দীর্ঘ ইতোমধ্যে দেশটির কোনও কোনও অঙ্গরাজ্যে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।

লকডাউন প্রত্যাহারের দাবিতে রাজপথে নেমে এসেছে দেশটির অনেক নাগরিক। মিশিগান ও ক্যালিফোর্নিয়ায় এ নিয়ে ইতোমধ্যে বড় ধরনের বিক্ষোভ হয়েছে। দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও লকডাউন তুলে নেওয়ার পক্ষে।

এদিকে, এ বিষয়ে ভয়ঙ্কর এক তথ্য ফাঁস হয়েছে। জানা গেছে, লকডাউন এ মাসে খুলে দেওয়া হলে যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দিনে অন্তত তিন হাজার করে মানুষ মারা যাবে ১ জুন থেকে।

সোমবার নিউইয়র্ক টাইমস এবং ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাম্প প্রশাসনের অভ্যন্তরীণ এক সেমিনারে এ ধরনের আশঙ্কা প্রকাশ করে প্রজেক্টরে তা দেখানো হয়েছে। আর সেটিই ফাঁস হয়ে গেছে।

ফাঁস হওয়া তথ্যানুসারে, ১ জুন থেকে দিনে গড়ে তিন হাজার করে মানুষ যুক্তরাষ্ট্রে মারা যেতে থাকবে কেবল করোনাভাইরাসের কারণে। সেই হিসেবে কেবল জুন মাসেই ৯০ হাজার মানুষ মারা যাবে দেশটিতে।

নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, জন হপকিন্স ব্লুমবার্গ স্কুল অব পাবলিক হেলথের মহামারী বিশেষজ্ঞ জাস্টিন লেজলার মডেলটি তৈরি করেছিলেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিস অ্যান্ড কন্ট্রোল প্রিভেনশন (সিডিসি) এ উপস্থাপন করা হয়।

তবে লেসলার ওয়াশিংটন পোস্টকে বলেন, মডেলটি এখনও সম্পূর্ণভাবে তৈরি করা হয়নি। যে মডেল সেখানে উপস্থাপন করা হয়েছিল এবং প্রদর্শন করা হয়েছিল, তাতে আমার কোনও ভূমিকা ছিল না। ওই তথ্য সিডিসির কাছে  উপস্থাপিত হয়েছিল … এটা কোনোভাবেই পূর্বাভাস দেওয়ার মতো ছিল না।

ফাঁস হওয়া তথ্যে বলা হয়েছে, লকডাউন খুলে দিলে দিনে অন্তত দুই লাখ মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে।

হোয়াইট হাউসের ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি জাড ডেরে বলেন, ফাঁস হওয়া প্রতিবেদনটি কোনও সংস্থা সমর্থন করেনি। আর সেটা হোয়াইট হাউসের নথিও নয়।

তিনি আরও বলেন, করোনাভাইরাস টাস্ক ফোর্সের সদস্যরা এটি তৈরি করেননি এবং তারা এটি মূল্যায়ন করেছে বলেও প্রতীয়মান হয়নি।

রেদওয়ানুল#

Advertisements
%d bloggers like this: