Skip to content

শাহেদ সাহেব অনেক বড় একজন ভিআইপি, নব্য আওয়ামীলীগ নেতা

107729252_2612357525531988_645773127918063063_n

 

রব্বানী চৌধুরী
নিউইয়র্ক।

 

শাহেদ সাহেব অনেক বড় একজন ভিআইপি, নব্য আওয়ামীলীগ নেতা, কয়েকটি ফার্মসহ রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক।প্রায় বলতে গেলে সরকারের সকলের সাথেই সম্পর্কিত। তাইতো ছবিতে পুরানো আওয়ামীলীগার এবং মন্ত্রীদের সাথে ছবি তুলা কিংবা দেখা করা কোন ব্যাপারই না।র্যাবের সাবেক কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সেনাবাহিনীর প্রধান, কেন্দ্রীয় নেতা ,মন্ত্রীসহ অনেকের সাথেই তিনি দেখা করেছেন, অন্তরঙ্গ হয়ে ছবিও তুলেছেন। কিন্তু আমার প্রশ্ন হচ্ছে, যেখানে আমার মতো অনেকেই ৪০/৪৫ বৎসর আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে কেন্দ্রীয় নেতা/ মন্ত্রীদের সাথে দেখা করা তো দুরের কথা ফোনেও পাওয়া যায় না।
এখানে উল্লেখ্য যে, শাহেদ তো পূর্বে কোন কলেজের নির্বাচিত ভিপি কিংবা জি,এস তো দুরের কথা ছাত্রলীগও করে নাই কিন্তু আমার জানামতে ৭৮ থেকে ৮১ সালে সিলেটের এম,সি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে দুর্দিনের নির্বাচিত দুই ভিপি অনেক কাঠ খড় পুড়িয়ে গিয়েছিলেন আমাদের সড়ক মন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের সাহেবের সাথে দেখা করতে কারন ওবায়দুল কাদের সাহেব ঐ সময় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন কিন্তু সাক্ষাতে কাদের সাহেব ঐ ভিপি দুইজনকেই চেনা তো দুরের কথা রিকগনাইজই করতে পারেন নি।
দুর্দিনের নির্যাতিত, নিপীড়িত কর্মীদের দুরে ঠেলে দিয়ে আজ যারা নব্য আওয়ামীলীগ শাহেদকে কাছে ঢেকে নেন তারা তো মাননীয় নেত্রী জননেত্রীর শেখ হাসিনার অবর্তমানে দলকে তো বিক্রি করে দিতেনই সাথে সাথে দেশকেও।
পরিশেষে, দলের নিবেদিত কর্মীভাইদের প্রতি আমার একান্ত অনুরোধ, আমরা যারা বঙ্গঁবন্ধুকে ভালোবেসে নিজের জীবন এবং যৌবনকে তুচ্ছ মনে করে জেল-জুলুমকে বরণ করে ৭৫ এর ১৫ই আগষ্ট পরবর্তী সময়ে অনেক লোভ লালসার উর্ধে উঠে দলকে সংগঠিত করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন শোষনহীন সোনারবাংলা প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে তারই রক্তের উত্তরাধিকার জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতে আওয়ামীলীগকে তুলে দিয়েছিলাম তাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য বিনীত আহবান জানাচ্ছি।পাশাপাশি জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি দলের মধ্যে শুদ্ধি অভিযান পরিচালনা করার জন্য নতুবা আমাদের সরকারের সকল উন্নয়ন এবং সফলতা বারংবার এই দুর্নীতিবাজদের কারনে বাধাগ্রস্থ হবে।

রব্বানী চৌধুরী
নিউইয়র্ক।

%d bloggers like this: