Category: খেলাধুলা

বাংলাদেশের ইতিহাসে একমাত্র বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক আকবর আলীর

অধিনায়ক আকবর আলীর দায়িত্বশীল ব্যাটে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে প্রথম শিরোপা জিতেছে বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টের হট ফেভারিট চারবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে তিন উইকেটে হারিয়ে বিশ্বকাপ জয়ের ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ। ক্ষণে ক্ষণে বাঁক পরিবর্তন। পেন্ডুলামের মত দুলতে দুলতে থাকা ম্যাচটিতে স্নায়ুর চাপ বাড়ছিল মুহূর্তে মুহূর্তে। উদ্বোধনী জুটিতে ৫০ ওঠার পর যেভাবে ব্যাকফুটে চলে গিয়েছিল বাংলাদেশ, সেখান থেকে জয় সম্ভব- এটাই ছিল যেন দুঃস্বপ্ন। অবশেষে চরম অনিশ্চয়তার ম্যাচটিকে সম্ভবে পরিণত করলেন অধিনায়ক আকবর আলির অসাধারণ ব্যাটিং।

সত্যিকার একটি ফাইনাল ম্যাচ উপভোগ করলো পচেফস্ট্রমের সেনওয়েজ পার্কের সমর্থকরা। ক্ষণে ক্ষণে রঙ বদলানোর ম্যাচটিতে সব বিভাগে শ্রেষ্ঠত্ব দেখিয়েই চ্যাম্পিয়ন হলো বাংলাদেশ। ভারতের মত শক্তিশালী দলকে ২৩ বল হাতে রেভে ৩ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে প্রথমবারেরমত যুব বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ।এই প্রথম যুব বিশ্বকাপের ফাইনাল খেললো বাংলাদেশ এবং প্রথমবারেই বিশ্বকাপের ট্রফি তুলে নিলো ঘরে। চারবারের চ্যাম্পিয়ন ভারত। সাতবার তারা খেলেছে ফাইনালে। তেমন একটি দলকে হারিয়েই বিশ্বচ্যাম্পিয়নের মুকুট পরলো বাংলাদেশের যুবারা।

কি অসাধারণ ব্যাটিংটাই না করলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক আকবর আলি! একের পর এক যখন উইকেট পড়ছিল, তখন একপ্রান্ত আগলে রেখে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। ৭৭ বলে ৪৩ রান করলেন আকবর। রাকিবুল হাসান ৯ রান করে অপরাজিত থাকেন।

নিরাপদে পাকিস্তানে পৌঁছেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

নিরাপদে পাকিস্তানে পৌঁছেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। বুধবার ভাড়া করা বিশেষ বিমানে স্থানীয় সময় রাত ৮টায় ঢাকা ছাড়ে মাহমুদউল্লাহ বাহিনী। পরে লাহোরে স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ১০টায় পৌঁছেন তারা।

সেখানে উষ্ণ অভ্যর্থনা পেয়েছেন টাইগাররা। বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহকে স্বাগত জানান পিসিবির কর্মকর্তারা। লাহোর বিমানবন্দরে নেমেই অভ্যর্থনা পান তামিম ইকবাল ও মিনহাজুল আবেদীন। বাকিরাও পান উষ্ণ অভ্যর্থনা।

পরে কড়া নিরাপত্তায় মাহমুদউল্লাহদের টিম হোটেলে নিয়ে যায় পাকিস্তানি নিরাপত্তা বাহিনী। বিমানবন্দরেই কড়া নিরাপত্তা দেখতে পান তারা। এর আগে বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর উপলক্ষে বিমানে বিশেষ কেক কাটা হয়।

২৪ জানুয়ারি লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে হবে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি। একই ভেন্যুতে আগামী ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি হবে বাকি দুই ম্যাচ। এ সময়ে মাহমুদউল্লাহদের নিরাপত্তায় থাকছে ১০ হাজার পাক পুলিশ।

পাকিস্তান সফরে টাইগারদের স্কোয়াড ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

জমজমাট বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ফাইনাল হলো। তবে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের নিশ্বাস ফেলারও ফুরসত নেই। কারণ, এরই মধ্যে শুরু হচ্ছে পাকিস্তান সফরের প্রস্তুতি। সে লক্ষ্যে আজই পাকিস্তান সফরে টাইগারদের স্কোয়াড ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

পাকিস্তান সফরে বাংলাদেশ দলে কিছুটা চমক রাখার চেষ্টা করেছে নির্বাচক কমিটি। এমনিতেই নিষেধাজ্ঞার কারণে নেই সাকিব আল হাসান। পাকিস্তানে খেলতে যেতে চান না মুশফিকুর রহীম। দুই গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটারের অনুপস্থিতিতে টিম ম্যানেজমেন্টের চিন্তা ছিল, সিনিয়র ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসকে দলে নেয়ার। বিপিএলেও দারুণ পারফরম্যান্স দেখিয়েছিলেন তিনি।

কিন্তু হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে ইমরুলকেও শেষ পর্যন্ত দলে নেয়া গেল না। অগত্যা বাধ্য হয়েই ভিন্নভাবে চিন্তা করতে হয়েছে নির্বাচকদের। শেষ পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে, ১৫ সদস্যের দলে কিছুটা রদবদল। তবে নতুন মুখ হিসেবে বাংলাদেশ দলে চমক দেখিয়েছেন বিপিএলে ঢাকা প্লাটুনের হয়ে খেলা পেসার হাসান মাহমুদ।

ঢাকা প্লাটুনের হয়ে খেলা স্পিনিং অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান এবার ব্যাট হাতে দারুণ পারফরম্যান্স দেখিয়েছিলেন। কখনও তিন নম্বরে, কখনও পাঁচ নম্বরে ব্যাট হাতে প্রতিপক্ষের বোলারদের ওপর দারুণ চড়াও হয়ে খেলেছিলেন। যে কারণে মেহেদী হাসানকে দলে নিয়ে বাদ দেয়া হয়েছে আরেক মেহেদী হাসানকে (মিরাজ)।

ইমরুল কায়েসকে দলে নিতে না পারার কারণে সুযোগ পেয়েছেন নাজমুল হাসান শান্ত। মিডল অর্ডারে আস্থা রাখা হচ্ছে মোহাম্মদ মিঠুনের ওপর। এছাড়া নতুন সেনসেশন আফিফ হোসেন ধ্রুব, নাইম শেখ, লেগ স্পিনার আমিনুল বিপ্লবদের রাখা হয়েছে টি-টোয়েন্টি দলে। পেসার হিসেবে মোস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে রয়েছেন শফিউল ইসলাম, রুবেল হোসেন, আল-আমিন হোসেন এবং হাসান মাহমুদকে।

ভারতের বিপক্ষে খেলা বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি দল থেকে এবার বাদ দেয়া হয়েছে স্পিনার তাইজুল ইসলাম, আরাফাত সানি এবং পেসার আবু হায়দার রনিকে। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হচ্ছে, পাকিস্তানের বিপক্ষে এই দলে নেই কোনো বাঁ-হাতি স্পিনার।

পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশ দল
মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, আফিফ হোসেন ধ্রুব, নাইম শেখ, নাজমুল হাসান শান্ত, মোহাম্মদ মিঠুন, মেহেদী হাসান, আমিনুল বিপ্লব, মোস্তাফিজুর রহমান, শফিউল ইসলাম, রুবেল হোসেন, আল-আমিন হোসেন ও হাসান মাহমুদ (নতুন)।

# আকিব #

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের নতুন চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী রয়েল! শহর জুড়ে ছলছে মিষ্টি বিতরণ ।

বিপিএল

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) নতুন চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী রয়েলস। বঙ্গবন্ধু বিপিএলের ফাইনালে মুশফিকুর রহিমের নেতৃত্বাধীন খুলনা টাইগারর্সকে ২১ রানে হারিয়ে বিপিএলের প্রথম শিরোপা ঘরে তুলেছে রাজশাহী।

এর আগে ২০১৬ সালে বিপিএল ফাইনালে উঠেও ঢাকা ডায়নামাইটের বিপক্ষে হেরে শিরোপ বঞ্চিত হয়েছিল রাজশাহী। তবে এবার আর হতাশ হতে হয়নি। সপ্তম আসরের শিরোপা নিয়েই বাড়ি ফিরেছে আন্দ্রে রাসেলের নেতৃত্বাধীন দলটি।

শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথমে ব্যাট করে ৪ উইকেটে ১৭০ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে রাজশাহী রয়েলস। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫২ রান করেন ইরফান শুককুর। ইনিংসের শেষ দিকে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে ২০ বলে ৪১ রান করেন পাকিস্তানি অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নওয়াজ। আর ১৬ বলে ২৭ রান করেছেন দলের অধিনায়ক আন্দ্রে রাসেল।

বিপিএল প্রথম শিরোপা জয়ের টার্গেট তাড়া করতে নেমে ১১ রানে দুই ওপেনারের উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে যাওয়া দলকে খেলায় ফেরাতে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন শামসুর রহমান শুভ। তৃতীয় উকেটে রাইলি রুশোর সঙ্গে গড়েন ৭৪ রানের জুটি। এক সময় মনে হয়েছিল হেসেখেলেই জিতে যাবে মুশফিকের খুলনা টাইগার্স।

২ উইকেটে ৮৫ রান করা খুলনা এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে শিরোপা জয়ের লড়াই থেকে ছিটকে যায়। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫২ রান করেন শামসুর রহমান শুভ। তার ইনিংসটি ৪৩ বলে ৪টি চার ও দুটি ছক্কায় সাজানো। এছাড়া ২৬ বলে ৩৭ রান করেন রাইলি রুশো। ২১ রান করে ফেরেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ১২ রান করেন রবি ফ্রাঙ্কলিঙ্ক। দুই অঙ্কের ফিগার রান করতে পারেননি খুলনার ৬ ব্যাটসম্যান।

শুক্রবার মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপাকে পড়ে যায় রাজশাহী। দলীয় মাত্র ১৪ রানে ওপেনার আফিফ হোসেনের উইকেট হারায় তারা।

তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে ওপেনার লিটন দাসের সঙ্গে ৪৯ রানের জুটি গড়েন ইরফান শুক্কর। দলীয় ৬৩ রানে ফেরেন জাতীয় দলের তারকা ওপেনার লিটন দাস। তার আগে ২৮ বলে এক চার ও এক ছক্কায় করেন ২৫ রান।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেন ইরফান শুক্কর। একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৩২ বলে ফিফটি তুলে নেন তিনি। ঘরোয়া লিগের এ তারকা ক্রিকেটার আগের ম্যাচেও অসাধারণ ব্যাটিং করেছিলেন। ফাইনাল নিশ্চিত করার ম্যাচে খেলেছিলেন ৪৫ রানের ইনিংস।

শুক্রবার দলীয় ৯৯ রানে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন ইরফান শুক্কর। তার আগে ৩৫ বলে ৬টি চার ও দুই ছক্কায় খেলেন ৫২ রানের ঝকঝকে ইনিংস।

ইরফান আউট হওয়ার পর দলের হাল ধরেন অধিনায়ক আন্দ্রে রাসেল ও মোহাম্মদ নওয়াজ। পাকিস্তান ব্যাটসম্যান নওয়াজকে সঙ্গে নিয়ে ইনিংসের শেষ দিকে রীতিমতো তাণ্ডব চালান রাজশাহীর ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

রাজশাহী রয়েলস: ২০ ওভারে ১৭০/৪ (ইরফান ৫২, নওয়াজ ৪১*, রাসেল ২৭*, লিটন ২৫, আফিফ ১০, শোয়েব মালিক ৯; আমির ২/৩৫)।

খুলনা টাইগার্স: ২০ ওভারে ১৪৯/৮ (শামসুর রহমান ৫২, রাইলি রুশো ৩৭, মুশফিক ২১; মোহাম্মদ ইরফান ২/১৮, কামরুল ইসলাম ২/২৯, আন্দ্রে রাসেল ২/৩২)।

ফল: রাজশাহী রয়েলস ২১ রানে জয়ী।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ!

অবশেষে দিনভর চলা নাটকের যবনিকা পতন।  বিসিসিআইয়ের পরবর্তী সভাপতি কে হবেন, ‌ রবিবার এই নিয়েই আলোচনা চলছিল ক্রিকেটমহলে। দিনের শেষে সেই ছবিটা যেন জলের মতো পরিস্কার হয়ে গেল। কর্ণাটক ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রাক্তন সচিব তথা দেশের প্রাক্তন টেস্ট ক্রিকেটার ব্রিজেশ প্যাটেল দিনভর এই দৌড়ে এগিয়ে থাকলেও শেষমুহূর্তে বাজিমাত করে গেলেন বাংলার ‘মহারাজ’।

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, ব্রিজেশ প্যাটেলের সঙ্গে বিসিসিআই মসনদে বসার দৌড়ে এগিয়ে ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পুত্র জয় শাহও। তবে প্রেসিডেন্ট নয়, বিসিসিআইয়ের নয়া সচিব পদে আসীন হতে চলছেন অমিত-পুত্র। সব ঠিকঠাক থাকলে নয়া কোষধ্যক্ষ হিসেবে বিসিসিআই পেতে চলেছে অরুণ ধুমালকে। প্রাক্তন বোর্ড প্রেসিডেন্ট অনুরাগ ঠাকুরের ভাই হিসেবে ক্রিকেট মহলেবেশ জনপ্রিয় তিনি। সোমবার বিভিন্ন পদে মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষদিন। তবে নির্বাচন নয়, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সর্বসম্মতিক্রমে বোর্ডের পদ অলংকৃত করতে চলেছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, অরুণ ধুমালরা।

এদিকে, কীর্তি আজাদকে সরিয়ে আইসিএ প্রতিনিধি হিসেবে নয় সদস্যের অ্যাপেক্স কাউন্সিলে জায়গা করে নিলেন প্রাক্তন ক্রিকেটার তথা সিওএ সদস্য অংশুমান গায়কোয়াড়। মহিলা প্রতিনিধি হিসেবে আগেই আইসিএ কমিটিতে জায়গা করে নিয়েছিলেন শান্তা রঙ্গস্বামী।