Category: বিনোদন

সালমান আমার কারণে কেন আত্মহত্যা করবে ! একজন মৃত মানুষের সঙ্গে আমাকে জড়িয়ে কথা বলাটা খুব বিশ্রী মনে হয়েছে : শাবনূর

img

শাবনূরকে নিয়ে সালমান-সামিরার নিয়মিত ঝগড়া হতো। ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানালেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআইর) প্রধান বনজ কুমার মজুমদার। এছাড়াও সালমানের বাসায় রান্নাবান্নার কাজ করা মনোয়ারা বেগমের জবানবন্দিতে উঠে এসেছে শাবনূর-সামিরা দু’জনকে নিয়েই সংসার করতে চেয়েছিলেন সালমান। কেননা সালমান সামিরা এবং শাবনূর দু’জনকেই প্রচণ্ড ভালোবাসতেন।

এ কারণে দু’জনকেই বিয়ে করে সংসার করতে চেয়েছিলেন সালমান। কিন্তু সামিরা তাতে রাজি হননি। সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টায় প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, বাসার কর্মচারীরা সবাই এমন জবানবন্দীই দিয়েছেন।

তবে পিবিআইয়ের এই কথায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন জনপ্রিয় নায়িকা শাবনূর। একটি প্রতিষ্ঠিত গণমাধ্যমে তিনি ফোনালাপে জানিয়েছেন, আমি তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। কিসের জন্য আমার নাম জড়ানো হচ্ছে! সালমান যদি আত্মহত্যাও করে, তাহলে আমার কারণে কেন করবে! আমার নামটা জড়ানোর আগে সবারই একবার ভাবা উচিত।’

শাবনুর বলেন, ‘একজন মৃত মানুষের সঙ্গে আমাকে জড়িয়ে কথা বলাটা খুব বিশ্রী মনে হয়েছে।’

শাবনূর বলেন, ‘আমাকে জড়িয়ে এমন কথা কেন বলা হচ্ছে, তা আমি জানি না! সালমান ও আমাকে জড়িয়ে এই ধরনের কথা কেউ যদিও বলে থাকে, সেটার আমি ঘোর বিরোধিতা করছি। সালমান শুধুই আমার নায়ক ছিল, সহশিল্পী ছিল, বন্ধু ছিল, এর বাইরে আর কোনো সম্পর্ক ছিল না। আমি আগেও বলেছি, তাকে আমি ভাইয়ের মতো শ্রদ্ধা করতাম। তার সঙ্গে আমার ভাইবোনের সম্পর্ক ছিল। অন্য রকম পরিচ্ছন্ন সম্পর্ক ছিল। এটা নিয়ে এখন কেউ কিছু বললে তা তো আমি মানবই না। একজন মরা মানুষকে নিয়ে এত বছর পর এত বিশ্রী কথা বলার মনমানসিকতা কীভাবে সবার হয়, সেটাও আমি বুঝি না।’

শাবনূর বলেন, ‘আমি তখন অবিবাহিত একটা মেয়ে। সালমান তো বিবাহিত। ওর স্ত্রীর সঙ্গেও আমার একটা ভালো সম্পর্ক ছিল। সালমানের স্ত্রী সব সময় আমাদের সঙ্গেই থাকত। প্রেমের সম্পর্কের কিছু একটা যদি হতো, এটা তখন সবাই বুঝতে পারত। এত বছর পর এই ব্যাপারটা নিয়ে আমাকে জড়িয়ে নোংরা উক্তি করার ব্যাপারটি মোটেও ভালো লাগছে না। কিছু মানুষ আমাকে জড়িয়ে গুজব ছড়িয়েছে। এখনো ছড়াচ্ছে।’

বর্তমানে শাবনূর অস্ট্রেলিয়ার সিডনীতে পরিবার নিয়ে বসবাস করছেন। অনেক বছর ধরেই আছেন মিডিয়ার বাইরে।

পারিবারিক কলহ ও মানসিক যন্ত্রণায় আত্মহত্যা করেছেন সালমান শাহ।

‘সামিরা-শাবনূর দুইজনকে নিয়েই সংসার করতে চেয়েছিলেন সালমান’

স্ত্রী সামিরা এবং চিত্রনায়িকা শাবনূর দুইজনকেই প্রচণ্ড ভালোবাসতেন প্রয়াত চিত্রনায়ক সালমান শাহ। এ কারণে শাবনূরকেও বিয়ে করে সংসার করতে চেয়েছিলেন সালমান। কিন্তু সামিরা তাতে রাজি হননি। এমন সব তথ্য উঠে এসেছে পুলিল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআইর) তদন্ত প্রতিবেদনে।

আজ সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় প্রেস ব্রিফিংয়ে এ সব তথ্য জানান পিবিআই প্রধান বনজ কুমার মজুমদার। এ বক্তব্যটি আসলে সালমানের বাসায় রান্নাবান্নার কাজ করা মনোয়ারা বেগমের জবানবন্দি থেকে নেয়া। ওই জবানবন্দীতে আরো বলা হয়, সতীনের সংসার করতে রাজি ছিলেন না সালমানের স্ত্রী সামিরা।পিবিআইয়ের ব্রিফিংয়ে বলা হয়, হত্যা নয়, আত্মহত্যাই করেছিলেন সালমান শাহ। চিত্রনায়ক সালমান শাহর রহস্যজনক মৃত্যুর পর দায়ের করা মামলায় এখন পর্যন্ত কোনো তদন্তকারী সংস্থার প্রতিবেদন গ্রহণ করেনি তার পরিবার। প্রথমে থানা পুলিশ পরে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) মামলাটি তদন্ত করে।

সেটি প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পর সালমান শাহ অপমৃত্যু নাকি হত্যার শিকার তা নিশ্চিত হতে আদালত বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি করে। সেটাও প্রত্যাখ্যাত হয়। এরপর র‌্যাব এবং সর্বশেষ ২০১৬ সালের ২১ আগস্ট তদন্ত সংস্থা হিসেবে দায়িত্ব পায় পিবিআই।

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মারা যান চিত্রনায়ক চৌধুরী সালমান শাহ। সে সময় এ বিষয়ে অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেছিলেন তার বাবা প্রয়াত কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী। পরে ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে মামলাটিকে হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করার আবেদন জানান তিনি। অপমৃত্যু মামলার সঙ্গে হত্যাকাণ্ডের অভিযোগের বিষয়টি একসঙ্গে তদন্ত করতে সিআইডিকে নির্দেশ দেন আদালত।

নিউজ সূত্র বিডি প্রতিদিন/ফারজানা

শিল্পীদের রাজনীতি তে আসতে নেই !

তাপস পাল, মরদেহ, সোহিনী, নন্দিনী,  শোক
শোকে পাথর তাপস পালের স্ত্রী, কাঁদছেন মেয়ে

গেল মঙ্গলবার হৃদরোগে আক্রান্ত  হয়ে সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে গেছেন টালিউড অভিনেতা তাপস পাল। অভিনেতা চলে যাবার এই শোক পৌঁছেছে টালিউড, বলিউড এবং ঢালিউডে। যদিও ভক্তদের মনের শোক এখন কিছুটা কমেছে। কিন্তু শান্ত হতে পারেননি তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী। শোকে পাথর হয়েছেন তিনি। অন্যদিকে অঝোরে কেঁদে যাচ্ছেন তাপস পালের মেয়ে সোহিনী।

একাধিক ভারতীয় গণমাধ্যম জানায়, মাত্র ৬১ বয়সে প্রয়াত তাপস পাল। বাবা আর নেই, যেন ভাবতেই পারছেন না মেয়ে৷। মাকে পাশে নিয়েই ডুকরে কেঁদে উঠছেন সোহিনী। স্বামী হারানোর শোক, মেয়ের চোখের জল দেখে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী। চিরকাল স্বামীকে আগলে রেখেছেন স্ত্রী নন্দিনী। শেষবেলায়ও তিনিই ছিলেন তাপসের সঙ্গে।

তাপসের মৃত্যুর খবর জানার পর গতকাল তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত ছিলেন বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির বহু তারকা। বাবার মৃ্ত্যুতে মেয়ে সোহিনীর চোখে ছিল শূন্যতা। মেয়ে সোহিনী আলতো করে নিজের ওড়না দিয়ে বাবার মুখ মুছে দেন।

গতকাল তাপস পালকে শেষবারের মতো দেখতে আসেন রচনা বন্দ্যোপাধ্যায়, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, জিৎ। ছলছল করছিল তাদের চোখ।

বুধবার চোখের জলে অভিনেতাকে চির বিদায় দেন তার পরিবার। রবীন্দ্র সদন থেকে কেওড়াতলায় নিয়ে যাওয়া হল তাপস পালের দেহ। দুপুর একটার কিছু পরে অভিনেতার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কেওড়াতলা মহাশ্মশানে। সেখানে তাকে গান স্যালুট দিয়ে বিদায় দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ভারতের বান্দ্রার হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তাপস পাল। দীর্ঘদিন ধরে স্নায়ুর রোগে ভুগছিলেন তিনি। কথা বলা ও চলা-ফেরায় সমস্যা ছিল। ভর্তি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল। ৬ ফেব্রুয়ারি ভেন্টিলেশন থেকে বের করা হয়। সোমবার রাতে আবারও অসুস্থ হয়ে পড়েন তাপস পাল। মঙ্গলবার ভোর ৩টা ৩৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল আর নেই

কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল আর নেই। মঙ্গলবার ভোরে মুম্বাইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বাংলা সিনেমার জনপ্রিয় এই অভিনেতা। 

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬১ বছর।

তরুণ মজুমদার পরিচালিত ‘দাদার কীর্তি’ ছবিতে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিনয় জগতে পা রাখেন তিনি। তখন তাঁর বয়স ছিল মাত্র ২২ বছর। ‘গুরুদক্ষিণা’, ‘সাহেব’, ‘ভালবাসা ভালবাসা’ তাঁর হিট ছবিরগুলির মধ্যে অন্যতম।

২০০৯-এ তৃণমূলের টিকিটে কৃষ্ণনগর থেকে জিতে সাংসদ হয়েছিলেন তিনি। রোজভ্যালি কাণ্ডে যুক্ত থাকার অভিযোগও উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে।

দেশবরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, নাট্যকার, অভিনেতা ও নাট্য পরিচালক মামুনুর রশীদ অসুস্থ।

দেশবরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, নাট্যকার, অভিনেতা ও নাট্য পরিচালক মামুনুর রশীদ অসুস্থ। তাকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানেই তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন টেলিভিশন নাট্যকার সংঘের সভাপতি মাসুম রেজা।

মামুনুর রশীদ দীর্ঘদিন ধরে পেট ব্যথায় ভুগছিলেন। মঙ্গলবার (৪ ফেব্রুয়ারি) পেট ব্যথা অনেক বেড়ে গেলে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। সেখানে কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তার আলসার ধরা পড়ে। এরপর চিকিৎসকের পরামর্শে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মাসুম রেজা বলেন, মামুন ভাইয়ের আলসার ধরা পড়েছে। এখন পিজি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তবে বুধবার (৫ ফেব্রুয়ারি) সকালের কোনো আপডেট তথ্য আমার জানা নেই।

নাট্যজন মামুনুর রশীদ স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশের মঞ্চ আন্দোলনের পথিকৃৎ। তিনি টিভির জন্য অসংখ্য নাটক লিখেছেন এবং অভিনয় করেছেন। ১৯৬৭ সালে তিনি তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে টেলিভিশনের জন্য নাটক লিখতে শুরু করেন যার বিষয়বস্তু ছিল মূলত পারিবারিক। সেসময় কমেডি নাটকও তিনি লিখতেন। নাট্যশিল্পের প্রতি তার প্রকৃত ভালবাসা শুরু হয় টাঙ্গাইলে তার নিজ গ্রামে যাত্রা ও লোকজ সংস্কৃতির সঙ্গে তার নিবিড় পরিচয়ের সূত্র ধরে। তার যাত্রার অভিনয় অভিজ্ঞতা তার নাট্যভাবনাকে খুবই প্রভাবিত করেছিল।

১৯৭১ সালে তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন এবং জড়িত হন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সঙ্গে। মুক্তিযুদ্ধকালীন তিনি তার প্রথম রচিত নাটক ‘পশ্চিমের সিঁড়ি’ কলকাতার রবীন্দ্রসদনে মঞ্চায়নের চেষ্টা করেন; কিন্তু তার আগেই ১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীনতা অর্জন করায়, নাটকটি আর তখন অভিনীত হয়নি। পরে নাটকটি ১৯৭২ সালে বাংলাদেশে অভিনীত হয়।

নাট্যকলায় বিশেষ অবদানের জন্য ২০১২ সালে তিনি একুশে পদকেও ভূষিত হন।

আমরা ভারতীয়। আমাদের কোনও ধর্ম নেই, থাকাও উচিৎ নয়।’শাহরুখ

শাহরুখ খান

হিন্দু-মুসলিম বিতর্ক নিয়ে মুখ খুললেন বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খান। শনিবার (২৫ জানুয়ারি) রেমো ডি’সুজার সঙ্গে জনপ্রিয় ডান্স রিয়্যালিটি শো ‘ডান্স প্লাস’-এ গিয়ে শাহরুখ খান ধর্ম নিয়ে ব্যক্তিগত মতামত দেন। 

ভারতের নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে ও ধর্ম নিয়ে চলছে নানা বিভেদ। আর এই উত্তাল সময়ে ধর্মের বিশেষ ভাবনা শেয়ার করলেন বলিউড বাদশা শাহরুখ খান। রিয়ালিটি শো ডান্স প্লাস ৫-এর এক এপিসোডে এসে তিনি জানালেন তার ব্যক্তিগত মতামত। ধর্ম নিয়ে পরিবারে কোনও আলোচনা হয় না তার। কোনও ধর্মে নয়, নিজেকে ভারতীয় ভাবতেই ভালোবাসি। শাহরুখ খান বলেন, ‘আমার স্ত্রী হিন্দু, আমি মুসলমান এবং আমার সন্তানরা হিন্দুস্তানি। ছোটবেলায় মেয়ে সুহানা এসে আমার কাছে জানতে চেয়েছিলো, ‘বাবা আমাদের ধর্ম কোনটা?’ আমি বলেছি, ‘আমরা ভারতীয়। আমাদের কোনও ধর্ম নেই, থাকাও উচিৎ নয়।’শাহরুখ আরও বলেন, ‘আমাদের পরিবারে সব ধর্মের উৎসব পালন করা হয়। তআমি কিন্তু কোনও নির্দিষ্ট ধর্মের ওপর বিশ্বাসী নই, প্রত্যেকদিন নামাজ পড়তে হবে ওইসব আমি করি না। কিন্তু ইসলামকে মানি, শ্রদ্ধা করি। ইসলামের রীতি-নীতিকে মানি। ইসলাম খুবই পবিত্র ও শৃঙ্খলাপরায়ণ ধর্ম।’উল্লেখ্য, নাগরিকত্ব নিয়ে আইন নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনায় বেশ উত্তাল ভারত। গত বছরের ডিসেম্বরে ওই আইনটি পাশ হয়। এ বছরের ১০ জানুয়ারি আইনটি কার্যকর করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর সতর্কতা : বাউল গানের বিশ্ব ঐতিহ্য প্রশ্নবিদ্ধ করা যাবে না

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঐতিহ্যবাহী বাউল গানের প্রসঙ্গে বলেছেন, বাউল গানের সঙ্গে সম্পৃক্তরা এমন কোনো কাজ করবেন না, যাতে বাউল গান বিশ্ব ঐতিহ্যে যে স্থান পেয়েছে সেটা প্রশ্নবিদ্ধ হয়। যদি কেউ অপরাধ করে থাকে সেটা আমরা দেখব। তবে অহেতুক চুল কাঁটা বা বাউল গানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা এটা গ্রহণযোগ্য নয় বলে জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনুর সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে সংসদ নেতা একথা বলেন। সম্প্রতি রাজবাড়ী জেলার পাংশা এক বাউলের চুল কেটে দেয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হয়।

সংসদ নেতা বলেন, বাউল গানকে বিশ্ব ঐতিহ্যে স্থান করতে আমরা উদ্যোগ নিয়েছি, সেটা আমরা অর্জন করেছি। বাউল গানের তো কোনো দোষ নেই। কিন্তু বাউল গান যারা করে বা ব্যক্তি বিশেষ সে যদি কোনো অপরাধে সম্পৃক্ত হয়, তাহলে আইন তার আপন গতিতে চলবে। আইনে যে ব্যবস্থা নেয়ার সেটা নেবে। এটার সঙ্গে গানের সম্পৃক্ততা নেই।

প্রশ্নকারীকে উদ্দেশ্যে করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপন কি এই নিশ্চয়তা দিতে পারবেন, যারা বাউল গান গাচ্ছেন তারা কেউ অপরাধ ছাড়া, অপরাধের ঊর্ধ্বে, কোনো অপরাধ করেন না, বা করেননি। এটা তো ঠিক না। কে কী করছেন, ব্যক্তি বিশেষ, সেটার হিসাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিশ্চয়ই কোনো অপরাধের সাথে সংযুক্ত বলে বা অপরাধ সংগঠিত হয়েছে বলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কাজেই বিষয়টার সঙ্গে ঐতিহ্যের কোনো সম্পর্ক নেই। বরং বলব এরা এমন কোনো কাজ যেন না করে, আজকে যে বাউল গান বিশ্ব ঐতিহ্যে স্থান পেয়েছে, সেটা যেন প্রশ্নবিদ্ধ না হয়। সেই ধরণের কাজ যেন তারা না করেন। সে ব্যাপারে আমাদের সচেতন করা দরকার এবং সচেতন হওয়া দরকার।

তিনি বলেন, সংবিধান লঙ্ঘন করে যখনই সামরিক সরকাররা ক্ষমতায় আসে তখন ঘোষণা দেয় আজ থেকে আমি রাষ্ট্রপতি হলাম। হলাম বলেই কাজ শুরু হয়ে যায়। পরিষ্কার করা শুরু হয়ে যায়। কেটে কুটে ছাপ করে, কেউ সাইকেল চালিয়ে যাচ্ছে পরে দেখা যাচ্ছে সবচেয়ে দামি গাড়ি নিয়ে চলছে। কেউ টি শার্ট পরে নেমে গেল পরে দেখা যায় পেরিস থেকে স্যুটকোর্ট নিয়ে আসছে। এগুলো তো দেখেছি। এগুলো বেশি দিন থাকে না, ৬ মাস।

সংসদ নেতা বলেন, এখনও কেউ যদি কিছু করে থাকে, অপরাধ যদি করে আমরা দেখব যথাযথ ব্যবস্থা নেব। অহেতুক কারো চুলকাটা বা গানে প্রতিবন্ধকতা করা এটা মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। তিনি বলেন, কুষ্টিয়ায় বাউলের ওই জায়গায় উন্নয়ন আওয়ামী লীগ সরকারই করে দিয়েছে। সেখানেও বাধা পেয়েছি। প্রথমবার করতে গেলাম, তখন অনেকেই বাধা দিয়েছে। ঝুপড়ি, টুপড়ি করে তারা ওভাবেই থাকবে। পরে সুন্দর করে ঘর করে দেয়া হয়েছে বাউল গানের ঐতিহ্য রক্ষা করার জন্য। সে কারণে তো বাউল গান বিশ্ব ঐতিহ্যে স্থান পেয়েছে।

এন্ড্রু কিশোরের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

শেখ হাসিনা, এন্ড্রু কিশোর,

দেশীয় সঙ্গীতের কিংবদন্তি শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের চিকিৎসায় পূর্ণ সহায়তা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ রোববার (১৯ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।গেল বছর ৯ সেপ্টেম্বর থেকে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পী এন্ড্রু কিশোর। সেখানে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ১৮ সেপ্টেম্বর তার শরীরে ক্যানসার ধরা পড়ে।আশরাফুল আলম খোকন জানান, শিল্পীর চিকিৎসার পুরো বিষয়টি তদারকির জন্য ইতোমধ্যে (রোববার দুপুরে) সিঙ্গাপুরের বাংলাদেশ দূতাবাসকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী তার চিকিৎসার বিষয়টি দেখভাল করছেন।চিকিৎসকরা জানান, এন্ড্রু কিশোরকে ছয়টি সাইকেলে ২৪টি কেমোথেরাপি দিতে হবে। ইতোমধ্যে ৪টি সাইকেলে তার ১৬টি কেমো সম্পন্ন হয়েছে। পঞ্চম সাইকেলের প্রথম কেমোথেরাপিও দেয়া হয়েছে। এখনও ৭টি কেমো বাকি।এদিকে চিকিৎসা ব্যয় মেটানোর জন্য রাজশাহীর নিজের ফ্ল্যাটও বিক্রি করেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এ কণ্ঠশিল্পী। সিঙ্গাপুর হাসপাতাল থেকে এন্ড্রু কিশোরের চিকিৎসার বাজেট দেয়া হয় প্রায় আড়াই কোটি টাকা। এরই মধ্যে শিল্পীর পরিবার খরচ করেছে দুই কোটি টাকারও বেশি। প্রয়োজন আরও অনেক টাকা। এ শিল্পীর পাশে দাঁড়িয়েছেন অনেকেই।

লন্ডনের ট্যাক্সিতে অদ্ভুত অভিজ্ঞতার সম্মুখীন সোনম

বলিউড অভিনেত্রী, সোনম কাপুর, ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা

স্বামী আনন্দ আহুজার সঙ্গে কিছুদিন ধরে লন্ডনে আছেন বলিউড অভিনেত্রী সোনম কাপুর। কিন্তু এবার লন্ডনের ট্যাক্সিতে অদ্ভুত অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হলেন তিনি। সে কথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়েছেন অভিনেত্রী।অনিল কাপুরের মেয়ে সোনম প্রথম টুইটে শুধুই একটি সতর্কবার্তা দেন এবং তার যে একটি ভয়ানক অভিজ্ঞতা হয়েছে তা জানান। দ্বিতীয় টুইটে তিনি বলেন ঠিক কী অভিজ্ঞতা হয়েছে। সোনম লেখেন, ড্রাইভার প্রকৃতিস্থ ছিলেন না। সারাক্ষণ শুধু বকাবকি করছিলেন আর আমার ওপর চিৎকার করছিলেন। আমি এত ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। পুরো রাইডটা কাঁপতে কাঁপতে এসেছি।

সোনমের এই টুইটের পরেই উবার লন্ডনের-এর পক্ষ থেকে সোনমকে টুইটারে অনুরোধ জানানো হয় তার কন্টাক্ট ডিটেলস শেয়ার করার জন্য। সোনম উত্তরে লেখেন– আপনাদের অ্যাপে আমি অভিযোগ জানানোর চেষ্টা করেছিলাম। শুধুই খাপছাড়া কিছু উত্তর পেলাম। আপনাদের অ্যাপের সিস্টেমটা একটু আপডেট করুন। যা হওয়ার হয়ে গেছে। আর কিছুই করার নেই আপনাদের।সোনমের টুইটের পরেই তার স্বামী আনন্দ আহুজা সোনমের টুইটটি শেয়ার করে লেখেন– অনুগ্রহ করে উবার চড়া বন্ধ করুন, বিশেষ করে লন্ডনে। আমরা একেবারেই বন্ধ করে দিয়েছি প্রায়। হেঁটে যান, বাইকে যান, ট্রেন-বাস যা খুশি, এমনকি লন্ডনের ব্ল্যাক ক্যাবও ভালো (ওরা বেশ দয়ালু, নিরাপদ আর যথেষ্ট শিক্ষিত)।২০১৮ সালে ব্যবসায়ী আনন্দ আহুজাকে বিয়ে করেন সোনম। আনন্দের বেশিরভাগ ব্যবসা লন্ডন কেন্দ্রিক, সেখানে বেশি সময় থাকেন তিনি। ফলে সোনমও এখন বছরের অনেকটা সময় থাকেন লন্ডনে। গত বছর দুটি ছবি মুক্তি পায় সোনমের, এক লাড়কি কো দেখা তো অ্যায়সা লাগা আর জোয়া ফ্যাক্টর। দুটি ছবিই বক্স অফিসে তেমন সাফল্য পায়নি।

অজয় বিয়ের সময় পুরোহিতকে ঘুষ দিতে চেয়েছিল

কাজল এবং অজয়ের প্রেমের গল্প যে কোনও রূপকথার গল্পের চেয়েও সুন্দর। ১৯৯৯ সালে অজয়কে বিয়ে করেছিলেন কাজল,  কিন্তু এতদিন পরেও সেই বিয়ের দিনের ঘটনাগুলো যেন নিজের চোখের সামনে ভাসতে দেখেন অভিনেত্রী। বিয়ের এত দিন পর অজয় দেবগণের ঘুষ দেওয়ার প্রস্তাবের কথাও ফাঁস করলেন তিনি। 

বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা যেন তাড়াতাড়ি শেষ করে দেওয়া হয় সেই জন্য পুরোহিতকে ঘুষ দিতে চেয়েছিলেন অজয় এমন কথা জানালেন কাজল।

সোশ্যাল মিডিয়া ব্লগের সাম্প্রতিক একটি পোস্টে, কাজল তার স্বামী অজয় দেবগণের সঙ্গে ডেটিংয়ের কিছু আকর্ষণীয় এবং মজার গল্প শেয়ার করে নিয়েছেন । ১৯৯৫ সালে হালচাল ছবির সেটে প্রথমবার অজয়কে দেখেন কাজল আর তারপর তার কী প্রতিক্রিয়া হয়েছিল তাও জানিয়েছেন তিনি। 

কাজল বলেন,‘২৫ বছর আগে হালচালের সেটে আমাদের একে অপরের সঙ্গে দেখা হয়- আমি শট দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে জিজ্ঞাসা করেছিলাম,  আমার নায়ক কোথায়?  তখন কেউ একজন ইশারা করে তাকে দেখান। পরে যদিও ওই ছবির সেটে থাকতে থাকতে আমরা একে অপরের বন্ধু হয়ে উঠি।’ 

‘আমি সেই সময় অন্য কারোর সঙ্গে ডেটিং করছিলাম এবং ও নিজেও অন্য একজনের  সঙ্গে সম্পর্কে ছিল। এমন দিনও গেছে যে আমি আমার সেই সময়ের বয়ফ্রেন্ডের বিরুদ্ধে ওর কাছে অভিযোগও করেছি! পরে আমরা দুজনেই বুঝতে পারলাম যে আমরা একে অপরের সঙ্গে অনেক বেশি স্বচ্ছন্দবোধ করছি।’

হালচালের পরে কাজল ও অজয় একসঙ্গে গুণ্ডারাজ, ইশক, দিল কেয়া করে, রাজু চাচা এবং প্যার তো হোনা হি থা ছবিতে জুটি বেঁধে কাজ করেন।

ওই পোস্টে কাজল এ কথাও লেখেন যে, একে অপরের থেকে যেহেতু বেশ খানিকটা দূরে থাকতেন তাই তাদের প্রেম বেশিরভাগ সময়ে গাড়ির মধ্যেই চলতো। এইসব কথা ছাড়া নিজের দাম্পত্যের নানা কথাও শেয়ার করেন অভিনেত্রী।

ওই পোস্টে কাজল নিজের প্রথমবার গর্ভবতী হওয়ার কথা এবং গর্ভপাত হয়ে যাওয়ার দুর্ভাগ্যজনক ঘটনাও শেয়ার করেছেন। 

প্রায় ১০ বছর পর ফের জুটি বেঁধে সেলুলয়েডে ফিরছেন কাজল এবং অজয় দেবগণ। তানাজি: দ্য আনসং ওয়ারিয়র ছবিতে একসঙ্গে দেখা যাবে তাদের। ওই ছবিটি ১০ জানুয়ারি মুক্তি পেতে চলেছে। সূত্র: এনডিটিভি

নতুন গানে উষ্ণতা ছড়ালেন নায়লা নাঈম

আলোচিত ও সমালোচিত মডেল নায়লা নাঈম মানেই দর্শকদের বাড়তি আগ্রহ! এই তারকা এবার হাজির হলেন তার নতুন মিউজিক ভিডিও নিয়ে। যেটি প্রকাশ হয়েছে মঙ্গলবার (২৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায়।

চার মিনিটের গান ভিডিওতে পুরোটা সময়জুড়ে নায়লা নাঈম উষ্ণতা ছড়িয়েছেন। ভিডিওতে নায়লা নাঈমের সঙ্গে রোমান্স করেছেন সাইফ খান। নতুন এ গানের শিরোনাম ‘পাগল করে আদর করে’।

গানটি যৌথভাবে লিখেছেন জাহিদ আকবর এবং অধ্যায়ন ধারা। গেয়েছেন কলকাতার সৌভিক কবি এবং সুর করেছেন অধ্যায়ন ধারা। কদিন আগে শ্রীমঙ্গলের একটি রিসোর্ট ও কালিঘাট চা বাগানে মিউজিক ভিডিওটির চিত্রধারণ হয়েছে।

চলচ্চিত্র নির্মাতা অনন্য মামুন টিমের সদস্য শেখ গোলাম রব্বানী মিউজিক ভিডিওটি নির্মাণ করেছেন এবং প্রযোজনা করেছে সেলিব্রেটি প্রোডাকশন। নির্মাতা অনন্য মামুন জানান, গানটি বড়দিন উপলক্ষ্যে অবমুক্ত করা হয়েছে।

Image may contain: 6 people, including Rabbani Sheikh, people smiling, tree, grass, child, outdoor and nature

সম্পর্কে আছি, বিয়ের চিন্তা আসেনি: জয়া

জয়া আহসান,

একজন খ্যাতি সম্পন্ন মানুষ কলকাতায় বলেছেন যে, আপনি বাংলাদেশে একজনের সঙ্গে ডেটিং করছেন। আগামী বছর সেটেল হবে।জয়া: ও। কে বলছে এসব আমার সম্পর্কে?আপনি কি গুজব হিসেবে এটাকে উড়িয়ে দিচ্ছেন?জয়া: না। আমি একটি রিলেশনশিপে আছি। তিনি বাংলাদেশেরই। কিন্তু তিনি ইন্ডাস্ট্রির কেউ না।বিয়ের খবর কী?আমি ডেটিং করছি আপাতত। কিন্তু সেটা এখনও বিয়ে পর্যন্ত গড়ানোর চিন্তায় আসেনি।

নিজের বিয়ের প্রসঙ্গে খোলামেলা এভাবেই কথাগুলো বলেছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। টাইমস অব ইন্ডিয়াকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব বলেন তিনি।আসছে ২৭ ডিসেম্বর মুক্তি অতনু ঘোষ পরিচালিত রবিবার ছবিটি মুক্তি পাবে। এ ছবিতে প্রথমবারের মতো টালিউডের সুপারস্টার প্রসেনজিতের সঙ্গে অভিনয় করছেন জয়া। ছবিটি নিয়ে দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে প্রেম বিয়ের প্রসঙ্গে এমন সোজা জবাব দেন অভিনেত্রী।এম